মেয়েদের যৌনাঙ্গের চুল কাটার সহজ উপায়

মেয়েদের যৌনাঙ্গের চুল কাটা খুব কঠিন একটি কাজ। মেয়েদের এ নিয়ে ঝামেলা পোহাতে হয় অনেক বেশি।

মেয়েদের শরীরে বা মুখে চুল থাকবেনা এটা একটা স্বাভাবিক বিষয়। লোমশ যৌনাঙ্গ বা মুখমণ্ডল অনেক ছেলেরই তাই অপছন্দ। তারা চায় তাদের শয্যাসঙ্গিনী হবে সকল ধরনের চুল থেকে মুক্ত এবং মসৃণ ত্বকের অধিকারী। তাইতো আজকালকার মেয়েরা চেষ্টা করে সবসময়ই ক্লিন আর নরম ত্বকের অধিকারিণী হতে। মেয়েদের এই উটকো ঝামেলার যৌনাঙ্গ অপ্রয়োজনীয় লোম বা চুল থেকে পরিষ্কার রাখার ৫টি সহজ উপায়।

চলুন দেখি উপায়গুলো কি কিঃ

মেয়েদের শরীর

 

১। টুইজিং/প্লাকিংঃ টুইজিং বা প্লাকিং হল এমন একটি উপায় যার মাধ্যমে প্রতিটা চুল বা লোম একে একে তুলে আনতে হয়।

যেখানে করা উচিৎঃ মুখমণ্ডল বা যেখানে চুলের ঘনত্ব কম

স্থায়িত্বঃ ৩-৮ সপ্তাহ

২। শেভিং (Shaving)

রেজার বা ইলেকট্রিক রেজার ব্যবহার করে শেভিং করা যেতে পারে।

যেখানে করা উচিৎঃ শেভিং যেকোনো জায়গায় করা যেতে পারে

স্থায়িত্বঃ ১-৩ দিন

৩। ওয়াক্সিং (Waxing)

একজন কসমেটোলোজিসট গলিত মোম ত্বকের উপর ছড়িয়ে দিয়ে একটি কাপড় দিয়ে ঢেকে দেন। মোম শুকিয়ে গেলে কাপড় উঠিয়ে ফেলেন। সাথে উঠে আসে লোম বা চুল।

যেখানে করা উচিৎঃ যেকোনো জায়গায় করা যেতে পারে

স্থায়িত্বঃ ৩-৬ সপ্তাহ

যৌনাঙ্গের চুল কাটা

৪। লেজার বা আলোক রশ্মি

একজন টেকনিসিয়ান উজ্জ্বল আলোকরশ্মি দিয়ে চুলের গোরা ধ্বংস করে দেন। এটা সবচেয়ে কার্যকর প্রক্রিয়া।

যেখানে করা উচিৎঃ যেকোনো জায়গায় করা যেতে পারে

স্থায়িত্বঃ সাধারণত ৬-১২ বার এই প্রক্রিয়া অবলম্বন করলেই চুলের কবল থেকে সম্পূর্ণরুপে পরিত্রাণ পাওয়া যায়।

লেজার

৫। ইলেকট্রলাইসিস

একজন প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত এক্সপার্ট একটি সুক্ষ নিডল প্রতিটি চুলের ফলিকলে ঢুকিয়ে কারেন্ট প্রবাহিত করে গোরা নষ্ট করে দেন।

যেখানে করা উচিৎঃ অনেক দীর্ঘ এই প্রক্রিয়া কম চুল বিশিষ্ট এলাকায় করা ভালো। তাতে কম সময়েই কর্ম সম্পাদন হয়।

এ বিষয়ে আরও পড়ুন   গ্রেট সেক্স লাইফের ৫ মন্ত্র

স্থায়িত্বঃ পুরোপুরি চুল না চলে যাওয়া পর্যন্ত ১-২ সপ্তাহ পর পরই ইলেকট্রলাইসিস (Electrolysis) করতে হয়।