মসুর ডালের পুস্তি গুন

ডাল ভাত বাঙ্গালির পরিচয় বহন করে। ডাল আমাদের শরীরের জন্য বিশেষ উপকারি। আমাদের দেশে এমরা বিভিন্ন ধরনের ডাল আমরা খেয়ে থাকি। যেমন – মুগ, মসুর, অড়হড়, মাষকলাই, বুটের ডাল ইত্যাদি। ডাল হচ্ছে শিম গোত্রের খাদ্যশস্য। এগুলো মূলত শুঁটিজাতীয় মৌসুমি ফলের শুকনো বীজ। ডাল রবিশস্য হলেও সারা বছরই নানান ডাল পাওয়া যায়। তবে তুলনামূলকভাবে মসুর ডালটাই বেশি জনপ্রিয়। মসুর ডালের ইংরেজি নাম হলো Red lentil। মসুর ডাল সহজপাচ্য এবং এতে প্রোটিনের পরিমাণ সর্বাধিক।

প্রতি ১00 গ্রাম মসুর ডালের পুষ্টিগুণঃ
জলীয় অংশ ১২.৪ গ্রাম
খনিজ পদার্থ ২.১ গ্রাম
আস ০.৭ গ্রাম
খাদ্য শক্তি ৩৪৩ কিলোক্যালরি
আমিষ ২৫.১ গ্রাম
চর্বি ০.৭ গ্রাম
ক্যালসিয়াম ৬৯ মিলিগ্রাম
লৌহ ৪.৮ মিলি গ্রাম
ক্যারোটিন ২৭০ মাইক্রোগ্রাম
ভিটামিন বি২ ০.৪৯ মিলিগ্রাম
শর্করা ৫৯.০ গ্রাম

সাধারণভাবে মসুর ডাল রান্না করে খাওয়ার পাশাপাশি এটা দিয়ে তৈরি করা হয় নানা রকমের পুষ্টিকর ও মুখরোচক খাবার। যেমন- ডালের চর্চরী, ডালনা, নিরামিষ, পিঁয়াজু, ডালপুরি, ডালের স্যুপ, আম ডাল, পুঁই ডাল ইত্যাদি। মসুর ডাল প্রোটিনের আধার বলে একে মাংসের বিকল্প হিসেবেও ধরা হয়।
খাওয়ার পাশাপাশি সৌন্দর্যচর্চাতেও রয়েছে মসুর ডালের ব্যবহার। ত্বক ও চুল উভয়ের মধ্যেই মসুর ডাল ব্যবহৃত হয়। যেমন-
– রোদেপোড়া দাগ কমাতে মসুর ডালবাটা, কাঁচা হলুদবাটা ও মধু একসাথে মিশিয়ে ত্বকে লাগান।
– ত্বকের ছোপ ছোপ দাগ কমাতে মসুর ডালবাটা, চন্দন, সামান্য কাঁচা দুধ ও মধু মিশিয়ে পেস্ট তৈরি ত্বকে লাগান। ১৫-২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্ট নিয়মিত ব্যবহারে ত্বকের দাগ কমে যাবে।
– কাঁচা হলুদ ও মসুর ডাল একত্রে বেটে নিয়ে সাথে মুলতানি মাটি ও গোলাপজল সহযোগে পেস্ট তৈরি করে ত্বকে লাগান। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল ও মসৃণ।
– মসুর ডাল ক্র্যাবার হিসেবেও অতুলনীয়। শুকনো মসুর ডাল গুঁড়ো করুন। এর সাথে চালের গুঁড়া ও গোলাপজল মিশিয়ে সারা শরীরে লাগান এবং মাসাজ করুন। এটা মরা কোষ পরিষ্কার করার পাশাপাশি ত্বকের উজ্জ্বলতাও বৃদ্ধি করবে।
– চুল ঝরঝরে ও রেশমী করে তুলতে মসুর ডালবাটা চুলে লাগিয়ে আধ ঘণ্টা রেখে ভালো ভাবে ধুয়ে ফেলুন। শ্যাম্পু করবেন না। চুল শুকানোর পর মোটা দাঁতের চিরুনী দিয়ে চুল আঁচড়ে বাড়তি ডালগুলো ঝরিয়ে ফেলুন। এটা সপ্তাহে অন্তত একবার ব্যবহার করুন। চুল সহজে জট লাগবে না এবং চুল তার হারানো উজ্জ্বলতা ফিরে পাবে।

এ বিষয়ে আরও পড়ুন   মিষ্টি কুমড়ার উপকারিতা

সূত্র:shorir